কিভাবে ব্লগ খুলতে হয়: কিভাবে ব্লগ সাইট বানাবেন তার পূর্ণাঙ্গ গাইড এটি

প্রিয় বন্ধুরা,
আজ আমি আপনাদের দেখাবো কিভাবে একটি ব্লগ খুলতে হয় কারণ অনেকেই আমাকে আমার ব্লগ থেকে স্বাচ্ছন্দময় একটি ক্যারিয়ার গড়তে পেরেছি দেখে প্রশ্ন করে কিভাবে ব্লগ তৈরি করব।

 

আমার এই ব্লগ তৈরির টিউটোরিয়াল অনুসরণ করে আপনি আপনার ব্লগ তৈরি করার নিয়ম পূর্ণাঙ্গভাবে জানতে পারবেন।

 

তো কারো সাহায্য ছাড়াই সম্পূর্ণ নিজে নিজে ব্লগ খোলার নিয়মটি এক্ষনি শিখে নিন।

 

নিজের মাস্টারকার্ড ছাড়াই সম্ভব!

 

কে জানে হয়তো আপনিও আমার মতো আপনার ব্লগ সাইটের মাদ্ধমে একটি ফুল-টাইম ক্যারিয়ার গড়তে সক্ষম হবেন যেখানে থাকবে না কোন বসের বকাঝকা আবার মাসে মাসে বিপুল পরিমান আয় ও করতে পারবেন!

 

কিভাবে ব্লগ খুলতে হয়?

একটি ব্লগ খুলতে প্রথমেই দরকার হবে ভালো মানের একটি ওয়েব হোস্টিং কোম্পানি পছন্দ করা, তবে সে ক্ষেত্রে লোকাল কোনো হোস্টিং কোম্পানি ভুলেও বেছে নেওয়া যাবে না।

 

আপনাকে সরাসরি আমেরিকান কোনো ভালো কোম্পানির কাছ থেকে আপনার সাইটের ডোমেইন ও হোস্টিং কিনতে হবে যদি আপনি সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ও পারফরমেন্স চান।

 

তাহলে নিচের স্টেপগুলো অনুসরণ করে আপনিও খুলে ফেলুন আপনার কাঙ্খিত ব্লগ সাইট কারো সাহায্য ও অতিরিক্ত কোনো চার্জ ছাড়াই।

 

স্টেপ ১. হোস্টিং কোম্পানির সাইটে যান

তো প্রথমেই আপনাকে একটি ভালো ওয়েব হোস্টিং কোম্পানির সাইটে যেতে হবে।

 

আমি আমার অধিকাংশ সাইট Namecheap এ হোস্ট করেছি ও দারুন সার্ভিস পাচ্ছি।

 

আপনার উচিত এমন একটি কোম্পানি থেকে আপনার সাইটের যাবতীয় জিনিস ক্রয় করা।

 

এখানে ক্লিক করে Namecheap এর সাইটে প্রবেশ করুন।

 

এরপর Monthly থেকে Annually বাটনে ক্লিক করুন যাতে করে আপনি হোস্টিং প্যাকগুলোর বাৎসরিক খরচ দেখতে পারেন।

Monthly or Annually

 

স্টেপ ২. আপনার পছন্দের হোস্টিং প্যাকটি বেছে নিন

এবার আপনাকে আপনার পছন্দের হোস্টিং প্যাকটি বেছে নিতে হবে।

 

Namecheap এর বর্তমানে ৩ টি শেয়ার্ড হোস্টিং প্যাকেজ রয়েছে যার মধ্যে দ্বিতীয়টি ব্যবহার করা সবথেকে বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

Namecheap hosting packs

তবে আপনার বাজেট যদি অনেক কম থাকে তবে প্রথম বছর সবথেকে কম মূল্যের প্রথম হোস্টিং প্যাকটি ও কিনলে চলবে।

 

তো ৩ টি হোস্টিং এর মধ্যে থেকে যেকোনো একটি বাছাই করুন।

 

স্টেপ ৩. হোস্টিংটি কিনুন

এবার আপনাকে আপনার পছন্দের হোস্টিংটি কিনতে হবে আর এজন্য আপনার বাছাই করা হোস্টিং প্যাকেজটির নিচে থাকা Add to Cart বাটনে ক্লিক করুন।

Add to Cart Button-min

দেখবেন যে তা একটি নতুন পেইজ ওপেন করবে।

 

স্টেপ ৪. আপনার সাইটের ডোমেইনটি কিনুন

নতুন এই পেইজটি মূলত আপনার ওয়েবসাইটের ডোমেইন কেনার জন্য একটি অপশন নিয়ে আসবে।

namecheap-hosting-4

এখান থেকে আপনাকে আপনার সাইটের ডোমেইনটি কিনতে হবে।

 

তো ডোমেইনটি কিনতে Purchase a new domain বাটনে ক্লিক করুন।

 

ফলে তা একটি ব্ল্যাঙ্ক বক্স ওপেন করবে যেখানে আপনার ওয়েবসাইটের কাঙ্খিত ডোমেইনটি বসাতে হবে।

 

আপনার ডোমেইন এর এক্সটেনশনটি .com এ বেছে নেওয়াই ভালো এই যেমন xyz.com, abc.com ইত্যাদি।

namecheap-hosting-5

এবার আপনার ডোমেইন এর নামটি ওই বক্সে বসালে তা এভেইলেবল আছে কিনা তা জানতে পারবেন।

 

যদি আপনার ডোমেইনটি এভেইলেবল থাকে তার মানে হলো যদি ওই ডোমেইনটি আপনার আগে আর কেউ না কিনে ফেলে, তবে আপনি আপনার ডোমেইন এর পাশে একটি টিক মার্ক দেখতে পাবেন।

 

নিচে দেখুন যে আমি আপনাকে দেখানোর জন্য একটি স্যাম্পল ডোমেইন নেইম দিয়ে ট্রাই করেছি ও তার পাশে একটি টিক মার্ক দেখতে পাচ্ছেন –

namecheap-hosting-6

তো আপনার ডোমেইনটি এভেইলেবল থাকলে একই রকম টিক মার্ক দেখতে পাবেন।

 

এবার নিচের Add New Domain to Cart বাটনে ক্লিক করুন।

 

স্টেপ ৫. আনুষঙ্গিক জিনিসগুলো কিনুন

এবার আপনাকে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য কিছু আনুষঙ্গিক জিনিস যেমন একটি SSL সার্টিফিকেট, হুইসগার্ড (WhoisGuard) ইত্যাদি কিনতে হবে।

namecheap-hosting-7-ssl

SSL সার্টিফিকেটটি অবশ্যই কিনবেন কারণ তা আপনার সাইটকে অনেক বেশি নিরাপদ করবে ও একই সাথে তা আপনার সাইটের rank বাড়ানোর ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

 

SSL সার্টিফিকেটের পাশে থাকা বাটনে ক্লিক করে তা আপনার শপিং লিস্টে নিয়ে নিন।

 

স্টেপ ৬. অর্ডার কন্ফার্ম করুন

এই ধাপে আপনাকে আপনার বাছাই করা সমস্ত সার্ভিসগুলো কেনার জন্য কন্ফার্ম করতে হবে।

 

আপনি আপনার শপিং কার্টে আপনার বাছাই করা সমস্ত সার্ভিসগুলো দেখতে পাবেন।

 

এবার আপনার অর্ডার কনফার্ম করে পেইমেন্ট করার পালা।

The total price of my blog for a year

এজন্য Confirm Order বাটনে ক্লিক করুন।

 

স্টেপ ৭. সাইন আপ বা সাইন ইন করুন

উক্ত বাটনে ক্লিক করলে আপনাকে Namecheap এ একটি ফ্রি একাউন্ট খোলার জন্য সাইন আপ (যদি আগে থেকে কোন একাউন্ট না থেকে থাকে) অথবা সাইন ইন (যদি ইতোমধ্যে Namecheap এ আপনার একাউন্ট থেকে থাকে) করতে হবে।

namecheap-hosting-9-sign-in-or-sign-up

তো SIGN UP বা Sign in and Continue বাটনে ক্লিক করে আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন অথবা একটি নতুন একাউন্ট খুলুন।

 

এরপর আপনার পেমেন্ট পরিশোধের পর আপনি আপনার ইমেইল ইনবক্সে কয়েকটি ইমেইল পাবেন।

 

গুরুত্বপূর্ণ! আপনার নিজের ইন্টারন্যাশনাল ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড না থাকলে আপনি খুব সহজেই ইস্টার্ন ব্যাংক থেকে একটি একোয়া প্রিপেইড ডেবিট মাস্টারকার্ড (AQUA MasterCard) করিয়ে নিতে পারেন যা মাত্র ৫৭৫ টাকায় (ভ্যাটসহ) পাওয়া যায়।

 

এছাড়া আপনার পরিচিত কোনো অনলাইন প্রফেশনাল যেমন কোন ফ্রিল্যান্সার এর কাছ থেকে তার কার্ড ব্যবহার করতে পারেন।

 

ওপরের কোনোটিই সম্ভব না হলে আমার সাথে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে: 01797-170200.

 

আমি আপনার হয়ে আমার মাস্টারকার্ড দিয়ে পেইমেন্ট করে দেব।

 

স্টেপ ৮. ইমেইল চেক করুন

ইমেইলগুলো চেক করুন ও তা থেকে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের কন্ট্রোল প্যানেল বা cPanel এর URL ,ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড পাবেন।

 

স্টেপ ৯. cPanel এ প্রবেশ করুন

এবার ওই ইমেইল থেকে URL বা লিংকে ক্লিক করে আপনার কন্ট্রোল প্যানেলে যেয়ে ইউজারনেমপাসওয়ার্ড ব্যবহার করে আপনার সাইটের কন্ট্রোল প্যানেলে প্রবেশ করুন।

namecheap-hosting-10

 

স্টেপ ১০. ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করুন

cPanel থেকে আপনাকে আপনার সাইটের জন্য একটি কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (CMS) ইনস্টল করে নিতে হবে।

 

এজন্য আপনাকে সফটাকুলাস (Softaculous) নামে একটি অন ক্লিক ইনস্টলার ব্যবহার করতে হবে।

 

cPanel এর নিচে যেতে থাকুন ও Softaculous নামে একটি সেকশন পাবেন।

namecheap-hosting-11

WordPress এ ক্লিক করলে Install Now নামে একটি বাটন পাবেন।

namecheap-hosting-12

উক্ত বাটনে ক্লিক করলে কয়েকটি সেকশন সম্বলিত একটি ফর্ম দেখতে পাবেন।

 

প্রথম সেকশনটি হলো Software Setup যেখানে আপনাকে কয়েকটি জিনিস সিলেক্ট করে নিতে হবে।

namecheap-hosting-13

প্রথমেই http:// এর পরিবর্তে https:// সিলেক্ট করুন কারণ আপনার সাইটটিতে SSL ব্যবহার করবেন তাই।

 

এরপর আপনার সদ্য কেনা ডোমেইনটি সিলেক্ট করুন এবং In Directory ঘরটি খালি রাখুন।

 

এবার দ্বিতীয় সেক্শনে (Site Settings) যান যেখানে আপনার সাইটের নাম ও সাইটের ডেসক্রিপশন লিখতে হবে।

namecheap-hosting-14

তো প্রথম ঘরে আপনার সাইটের নাম ও দ্বিতীয় ঘরে আপনার সাইটের একটি স্লোগান লিখুন।

 

এবার তৃতীয় সেকশনটিতে যান যেখানে আপনার সাইটের এডমিন ইউজারনেমপাসওয়ার্ড সিলেক্ট করতে হবে।

namecheap-hosting-15

এডমিন ইউজারনেম হিসেবে admin বা আপনার নাম সিলেক্ট না করে অন্য কোনো শব্দ ব্যবহার করুন যা আপনার সাইটটিকে হ্যাকারদের হাত থেকে করবে আরো বেশি নিরাপদ।

 

একই সাথে একটি কঠিন পাসওয়ার্ড সিলেক্ট করুন।

 

সবশেষে নিচের Install বাটনে ক্লিক করলেই ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল শুরু হয়ে যাবে।

namecheap-hosting-16

কিছুক্ষনের মধ্যেই আপনার সাইটটি রেডি হয়ে যাবে।

 

এবার আপনার Namecheap একাউন্টে সাইন ইন করুন ও আপনার ডোমেইনের পাশে লেখা Manage বাটনে ক্লিক করুন।

 

NAMESERVERS এ যেয়ে দেখুন সেখানে Namecheap BasicDNS আছে।

 

এটিকে পাল্টিয়ে Namecheap Web Hosting DNS সিলেক্ট করে দিন। কয়েক মিনিটের মধ্যে তা সেভ হয়ে যাবে।

 

এবার আপনার সাইটে ভিজিট করতে পারবেন যদি আপনার ডোমেইনের প্রোপাগেশন কমপ্লিট হয়ে থাকে। সাধারণত ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে নতুন কেনা ডোমেইনের প্রোপাগেশন কমপ্লিট হয়ে যায়।

 

তো এই সময়টুকু একটু ধৈর্য্য ধরুন যতক্ষণ না আপনার ডোমেইনটি প্রোপাগেট হয়ে যায়।

 

আপনার ডোমেইনটি প্রোপাগেট হয়ে গেলে এবার যেকোনো ব্রাউসারে যেয়ে আপনার সাইটে ভিজিট করুন।

 

এবার আপনার সাইটের ওয়েব এড্ড্রেসের ডানদিকে একটি স্ল্যাশ / চিহ্ন দিন ও তারপর লিখুন wp-admin/ ও এন্টার চাপুন।

 

দেখবেন আপনার সাইটের ড্যাশবোর্ডের লগইন পেইজ দেখাচ্ছে।

WP login

এখানে আপনার ইমেইল এড্রেস বা ইউজারনেমপাসওয়ার্ড ব্যবহার করে আপনার সাইটের ড্যাশবোর্ডে প্রবেশ করুন।

 

এই ড্যাশবোর্ডের সাহায্যে আপনি আপনার সাইটটি কন্ট্রোল করতে পারবেন।

 

আশা করি ওপরের গাইডটি দেখে আপনি নিজেই আপনার ওয়েবসাইটটি খুলতে সক্ষম হবেন।

 

এরপরও যদি আপনি মনে করেন যে আপনি কাজটি করতে পারবেন না, তবে আমার সাথে যোগাযোগ করুন, আমি আপনার সাইটটি প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত কোন চার্জ ছাড়াই সুন্দরভাবে খুলে দেব।

 

আরো কিছু গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট পড়ুন:

ওয়েবসাইট থেকে আয় করার উপায়

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

এফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে শুরু করবো?

পড়াশুনার পাশাপাশি আয় করার উপায়

চাকুরীর পাশাপাশি আয় করার উপায়

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্টে জানান আর ভাল লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন

Leave a Comment